রাঙ্গাবালীতে মাছের ঘের দখলের অভিযোগ ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে





প্রতিবেদক, টাইমসবাংলা.নেটঃ
পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান শিভলীর বিরুদ্ধে হামলা করে মাছের ঘের দখলের অভিযোগ উঠেছে। তার নেতৃত্বে সশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলার শিকার বেশ কয়েকজন গলাচিপা ও পটুয়াখালী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ব্যপারে রাঙ্গাবালী থেকে পালিয়ে এসে গলাচিপা আদালতে মামলা দায়েরের পর মাছের ঘের পূনরুদ্ধারের দাবীতে পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন ভূক্তভোগিরা।

রাঙ্গাবালী উপজেলার ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য ও ঘের মালিক মো. লিটন মৃধা সোমবার দুপুরে পটুয়াখালী প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জানান, সরকারী খাজনা দিয়ে বৈধভাবে উপজেলার গহিনখালী খালের ৩৫ একর জমি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে তিন বছরের জন্য লীজ নিয়ে মাছের চাষ করে আসছে। কিন্তু গত ১৫জুলাই উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান শিভলীর নেতৃত্বে শতাধিক সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনী ঘের মালিক লিটনের বাড়ী ও গ্রাম আক্রমন করে মাছের ঘেরটি দখল করে নেয়।

সেখানে সন্ত্রাসীরা লিটনের বোনসহ বেশ কয়েকজনকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে যারা বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে পটুয়াখালীসহ বিভিণ্ন হাসপাতালে। লিটন জানান, এর আগে ছোটবাইশদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান হাজী আঃ মান্নান এর হুকুমে ছাত্রলীগ সভাপতি কামরুজ্জামান শিভলী, মাহমুদ এবং জিন্নার নেতৃত্বে আরো একবার ঘের দখলের চেষ্টা করা হয়।

কোন উপায় না পেয়ে ভূক্তভোগিরা ৯৯৯ এ কল করলে রাঙ্গাবালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছলে পরিস্তিতি পুলিশের নিয়স্ত্রনে আনে। কিন্তু এখন অবদি ভুক্তভোগিরা গ্রামের বাইরে বের হতে পারছেননা সন্ত্রাসীদের ভয়ে। এক পর্যায়ে গত ১৯জুলাই গলাচিপা জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করে আজ পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করতে বাধ্য হন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান শিভলী জানান, আমার বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। এ ঘটনার সাথে কোন ভাবেই আমার কোন সম্পর্ক নাই বা আমি জড়িত নই।#







মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

গনমাধ্যম

স্বাস্থ্য

বিশেষ সংবাদ

কৃষি ও খাদ্য

আইন ও অপরাধ

ঘোষনাঃ