ফরিদপুরে পুকুর থেকে ধাতব পিলার উদ্ধারে শহরে আলোড়ন





টাইমসবাংলা.নেটঃ
ফরিদপুরে পৌর পুকুরে নির্মাণ ও সংস্কার কাজ চলাকালে পানির মধ্যে থেকে একটি ধাতব পিলার উদ্ধার করা হয়েছে। ওই পিলারটি বর্তমানে ফরিদপুর পৌরসভা ভবনের নিচতলায় রাখা হয়েছে। পিলার উদ্ধারের বিষয়টি জানাজানি হলে শহরে ব্যাপক আলোড়ন সৃস্টি হয়।

এ পিলারটি দেখতে অসংখ্য অনুসন্ধিৎসু দর্শককে ভিড় জমাতে এবং নানা ধরণের জল্পনা-কল্পনা করতে দেখা গেছে। স্থানীয়দের ধারনা এটি বৃটিশদের বসানো সীমানা পিলার, যা বজ্রপাত প্রতিরোধক এবং অনেক মূল্যবান।

ফরিদপুর পৌরসভা এবং ব্র্যাকের আরবান ডেভলপমেন্ট প্রকল্পের উদ্যোগে শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত জুবিলি ট্যাংক নামে খ্যাত পৌরপুকুরের সংস্কার ও নির্মাণ কাজ চলছে।

ব্র্যাকের আরবান ডেভলপমেন্ট প্রকল্পের সমন্বয়কারী ইকরাম হোসেন বলেন, দুপুর ১২টার দিকে ওই পুকুরের পশ্চিম দিকে নারীদের জন্য নির্মাণাধীন একটি ঘাটলার মাটি খোড়ার সময় ধাতব নির্মিত ওই পিলার সদৃশ্য বস্তুটি পাওয়া যায়। পরে সেটি উদ্ধার করে পৌরসভা ভবনে নিয়ে আসা হয়।

গোলাকায় এই পিলারটির আনুমানিক দুই ফুট দৈর্ঘ্য ও এক ফুট ব্যাস বিশিষ্ট। পিরারটির এক দিকে চোখা অপরদিকে ত্রিভুজাকৃতির। পিলারে গায়ে লেখা রয়েছে বি টি ই এস ডট কম। অপরদিকে ১৮১৮ লেখা।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুর পৌরসভার মেয়র শেখ মাহাতাব আলী বলেন, এটি ধাতব নির্মিত তবে কি ধাতুতে তৈরি তা সনাক্ত করা যায় নি। তিনি বলেন, এটি বৃটিশ আমলে জমির পরিমাপ ও বজ্রপাত ঠেকাতে চৌম্বুক গুন সমৃদ্ধ যে পিলারগুলি মাটিতে পোতা হয় সে বস্তু হয়ে থাকতে পারে।

মেয়র বলেন, ধাতব নির্মিত ওই পিলারটি উদ্ধারের পর বিষয়টি ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনের সাংসদ খন্দকার মোশাররয় হোসেন, ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামানকে অবগত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, উদ্ধার করা ওই বস্তুটির সঠিক পরিচয় নির্ধারণের পর সেটি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় নাকি যাদুঘরে প্রেরণ করা হবে, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।#



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

গনমাধ্যম

স্বাস্থ্য

বিশেষ সংবাদ

কৃষি ও খাদ্য

আইন ও অপরাধ

ঘোষনাঃ