ফরিদপুরে বাস-মাইক্রোবাস সংঘর্ষ, বিএনপি নেতার পরিবারের ৪ সদস্যসহ নিহত ৬, তদন্ত কমিটি গঠন





টাইমসবাংলা.নেটঃ
ফরিদপুরের সদর উপজেলার কানাইপুর ইউনিয়নের ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের করিমপুর মল্লিকপুর এলাকায় বাস-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ৬ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে ১ জন। সোমবার সকাল ৭ টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, ফরিদপুর জেলা ওলামা দলের সভাপতি ডা. শরিফুল ইসলাম, তার মেয়ে তাবাসসুম, বোনের মেয়ে তানজিলা, শ্যালিকা জাকিয়া সুলতানা, শরিফুলের বন্ধু পুলিশের উপ পরিদর্শক(এসআই) ফারুক হোসেন ও চালক নাহিদ হোসেন। এদের মধ্যে চালক নাহিদের বাড়ি নড়াইল জেলায় অন্যদের বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলায়। এসময় শরিফুলের স্ত্রী রিম্মিকে গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে ফরিদপুর মেডিকেল ও পরে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

ডা. শরিফুল জেলা ওলামা দলের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ওলামা দলের যুগ্ম সম্পাদক। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফরিদপুর ১ আসন থেকে বিএনপি’র মনোনয়ন চেয়েছিলেন শরিফুল। পরে সেখানে সাবেক সাংসদ শাহ মো. আবু জাফর মনোনয়ন পেলে তার পক্ষে নির্বাচনী প্রচারনায় নামের শরিফুল।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাইওয়ে পুলিশ জানিয়েছে, ডা. শরিফুল পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ব্যাক্তিগত মাইক্রোবাস যোগে ঢাকার দিকে যাচ্ছিলেন, বিপরীত দিক থেকে খুলনাগামী মামুন পরিবহনের একটি বাস সামনে থেকে মাইক্রোটিকে সজোরে ধাক্কা দিলে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় মাইক্রোর সামনের অংশটি দুমরে মুচরে যায়।

খবর পেয়ে স্থানীয় জনতা, ফায়ার সার্ভিস ও হাইওয়ে পুলিশ পৌছে উদ্ধার কাজ শুরু করে। এসময় তারা ঘটনাস্থল থেকেই ৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করে। আহত অবস্থায় ডা. শরীফুলের স্ত্রী রিম্মিকে উদ্ধার করে প্রথমে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়, পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়।

হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, প্রাথমিক তদন্তে ও প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যে বুঝা যাচ্ছে প্রথমত ঘন কুয়াশা, দ্বীতিয়ত বাসের বেপরোয়া গতি ও রং সাইডে চলে আসাই দুর্ঘটনার কারন। এই ঘটনায় মামলা হবে, তদন্ত শেষে সঠিক কারন বলা যাবে। তিনি আরো জানান, বাসটি আটক করা গেলেও এর চালক ও অন্যরা পলাতক রয়েছে।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক অতুল সরকারসহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা। তিনি বলেন, এই ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দীপক কুমার রায়কে প্রধান করে ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন হাইওয়ে পুলিশের প্রতিনিধি, ট্রাফিক পুলিশের প্রতিনিধি ও সড়ক বিভাগের একজন প্রতিনিধি। তিনি আরো জানান, নিহতদের জন্য সরকারী ভাবে ২৫ হাজার টাকা করে বরাদ্দ রয়েছে। #



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

গনমাধ্যম

স্বাস্থ্য

বিশেষ সংবাদ

কৃষি ও খাদ্য

আইন ও অপরাধ

ঘোষনাঃ