জাতীয় জুডোতে ফরিদপুরের মেয়ে নিলুফা’র স্বর্ণ জয়





টাইমসবাংলা.নেটঃ
জাতীয় জুডো প্রতিযোগিতায় ফরিদপুরের সালথার দরিদ্র পরিবারের মেয়ে নিলুফা আক্তার সপ্তম বারের মতো স্বর্ণ পদক জয় করেছে। আয়োজক সংগঠন বাংলাদেশ জুডো ফেডারেশন ও বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন কর্তৃক প্রদত্ত সনদপত্র এবং প্রাপ্ত স্বর্ণ পদক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবারই বাংলাদেশ আনসারের প্রতিযোগী হয়ে জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহণ করে তিনি এ সব স্বর্ণ পদক লাভ করেন। এ ছাড়াও জুডো প্রতিযোগিতায় তিনি ১বার রৌপ্য ও ১বার তাম্র পদক লাভ করেন।

ফুটবল প্রশিক্ষণে অংশ নিয়েও কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন এ ক্রীড়াবিদ। নিলুফা আক্তার ফরিদপুর জেলার সালথা উপজেলার গট্টি ইউনিয়নের সিংহপ্রতাপ গ্রামের ভ্যানচালক শহিদ মৃধা ও গৃহিনী মাজেদা বেগম দম্পতির কনিষ্ঠ কন্যা।

জানা যায়, ২০১৬ সালে বাংলাদেশ জাতীয় জুডো প্রতিযোগীতায় বাংলাদেশ আনসারের হয়ে অংশ নিয়ে ১ম বার স্বর্ণ পদক লাভ করেন নিলুফা আক্তার। একই সংস্থার আয়োজনে আনসারের হয়ে ২০১৭ সালে অনুর্ধ্ব -১৮ জুডো প্রতিযোগীতায় একক ও দলগতভাবে দু’টি স্বর্ণ পদক লাভ করেন তিনি। ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত একই প্রতিযোগিতায় পুনঃরায় একক ও দলগতভাবে ২টি স্বর্ণ পদক লাভ করেন এ প্রতিযোগীনী। এতে তার থলিতে জমা হয় ৫ স্বর্ণ পদক।

একই বছর বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের আয়োজনে বাংলাদেশ যুব গেমস্ ২০১৮-তে জুডো প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে নিলুফা ৬ষ্ঠ বার স্বর্ণ পদক লাভ করেন। ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত বিজয় দিবস ক্লাব কাপ জুডো প্রতিযোগিতায় তিনি ৭ম বার স্বর্ণ পদক লাভ করেন। এ ছাড়া তিনি এশিয়া অঞ্চল ভিত্তিক “স্পোর্টস্ ফর টুমোরো জুডো চ্যাপি¥য়নয়নশিপ ২০১৭” তে অংশ নিয়ে তাম্র ও স্বাধীনতা দিবস জুডো প্রতিযোগীতা ২০১৯ এ অংশ নিয়ে রৌপ্য পদক লাভ করেন। অন্যদিকে নিলুফা আক্তার ২০১৪ সালে যৌথভাবে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন ও প্লান ইন্টান্যাশনাল বাংলাদেশ আয়োজিত ফুটবল প্রশিক্ষণে অংশ নিয়ে সফলতার সাথে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শেষ করেন।

দরিদ্র ভ্যানচালকের মেয়ে নিলুফা আক্তারের এমন সাফল্যে সালথা উপজেলা বাসীসহ খুশী পুরো জেলার মানুষ। তারা জানান, নিলুফা আক্তার জুডো প্রতিযোগিতায় বার বার স্বর্ণ পদক জিতে তিনি এখন নিজেই স্বর্ণ কন্যায় পরিনত হয়েছেন। সালথাবাসী তার সাফল্যে গর্বিত। স্থানীয়ভাবে এ সফল নারী ক্রীড়াবিদকে সংবর্ধনা দিলে একদিকে যেমন তার প্রাপ্য সম্মান পেতেন অন্য দিকে এলাকার প্রতি তার মমত্ববোধ বেড়ে যেত।

নিলুফা আক্তারের বাবা শহিদ মৃধা আক্ষেপ করে বলেন, নিলুফা বাংলাদেশ আনসারের পৃষ্ঠপোষকতায় জাতীয়ভাবে নিজের সফলতার প্রমান দিয়ে নিজ জন্মভূমি সালথার ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করলেও স্থানীয়ভাবে তার কৃতিত্বের কোন মূল্যায়ন করা হয়নি। এলাকার কেউ একটা ফুল দিয়েও তাকে অভিনন্দন জানায়নি।

এ ব্যাপারে সফল নারী ক্রীড়াবিদ নিলুফা আক্তার আশা ব্যক্ত করে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এমপি আমাদের মুরব্বী। তাদের সাথে সাক্ষাতের সুযোগ পেয়ে দোয়া নিতে পারলেই আমি নিজেকে ধন্য মনে করব। তাদের সঙ্গে আমার সাক্ষাতের সুযোগ হবে কিনা তাও জানি না। এলাকার কেউ আমাকে অভিনন্দন জানালো কি না এটা নিয়ে আমি ভাবি না। আরোও সফলতা অর্জনই আমার লক্ষ্য।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ আনসারের জুডো প্রশিক্ষক সৈয়দ আলী আনোয়ার বলেন, নিলুফা আক্তার একজন সফল জুডোবিদ। এত কম বয়সে তার অভাবনীয় সাফল্যে আমরা গর্বিত। তিনি বাংলাদেশ আনসারের প্রতিযোগী হয়ে অংশ নেন। এতে তাকে সম্মানী ভাতা দেয়া হয়। তার একটি স্থায়ী কর্মসংস্থান থাকলে তিনি আরোও উজ্জীবিত হতেন। #



মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

গনমাধ্যম

স্বাস্থ্য

বিশেষ সংবাদ

কৃষি ও খাদ্য

আইন ও অপরাধ

ঘোষনাঃ