সালথায় পাটের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

  • Views 450076
  • Likes
  • Rating 12345





মনির মোল্য, টাইমসবাংলা.নেটঃ
বাংলাদেশের মধ্যে পাটের জন্য ফরিদপুর জেলা বিখ্যাত। জেলার মধ্যে পাটের ফলন ও মানের দিক দিয়ে সালথা উপজেলা সর্বোচ্চ স্থান অধিকার করেছে। এ বছরের শুরুতেই আবহাওয়া পাটের অনুকুলে থাকায় পাটের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।

এই উপজেলার অধিকাংশ মানুষ কৃষির উপর নির্ভরশীল। এরমধ্যে পাট ও পিয়াজ অন্যতম ফসল। পূর্বে এই এলাকার কৃষকরা বৃষ্টির পর পাটের বীজ বপন করতো। বীজ বপন করার ১০/১৫ দিনের মধ্যেই আবার ঘনঘন বৃষ্টি হতো। কোন প্রকার সেচের ব্যবস্থা ছিলো না। রৌদ-বৃষ্টি ও আবহাওয়া পাটের অনুকুলে থাকার কারনে পাটের উৎপাদন ভাল হতো।

এবছরে এই উপজেলায় সাড়ে ১২ হাজার হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ করা হয়েছে। কৃষকরা তাদের প্রধান ফসল পাট উৎপাদনের জন্য শ্যালো মেশিন দিয়ে সেচের ব্যবস্থা করে। পাটের বীজ বপন করার আগে থেকে ২ মাস পর্যন্ত কোন বৃষ্টি না থাকায় পাট চাষীরা চরম বিপাকের মধ্যে থাকলেও বর্তমানে পাটের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে একাধিক চাষী জানিয়েছেন।

রামকান্তুপুর ইউনিয়নের পাট চাষী সাহেব খান, সোনাপুর ইউনিয়নের চাষী কালাম মোল্যা টাইমসবাংলাকে বলেন প্রথমে পাটের পোকা ধরা নিয়ে বিপদে থাকলেও বর্তমানে পাট গাছ বেড়ে উঠার জন্য মনে আনন্দ দেখা দিয়েছে। আর ১৫/২০ দিন পর থেকে পাটক্ষেতে যদি পানি আসে তাহলে সুস্থ্য মতো পাট কাটা ও পঁচানোর জন্য সুবিধা হবে। বর্তমানে পাট যে অবস্থায় আছে, তাতে পাট ছাড়ানোর কাজ শেষে বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। তারা আরও বলেন, এ বছর এখন পর্যন্ত কোন খাল, বিল, নদী , নালায় পানি আসেনি পানির অভাবে কৃষকরা পাট কাটতে পারছে না। যে সব পাট আগে বপন করা হয়েছিলো সে সব ক্ষেতের পাট কাটা দরকার, না হলে পাট গাছ শুকিয়ে যাবে।

উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মাদ বিন ইয়ামিন বলেন, এবছরে এই উপজেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে সাড়ে ১২ হাজার হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ করা হয়েছে। বর্তমানে পাটের অবস্থান খুবই সন্তোষজনক। আর কিছুদিন আবহাওয়া পাটের অনুকুলে থাকলে, পাটের বাম্পার ফলন হবে। তাতে কৃষকের মুখে হাসি ফুটে উঠবে। #






মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

বিশেষ সংবাদ

আইন ও অপরাধ

স্বাস্থ্য

  • item-thumbnail

    মেথি চা’য়ের উপকারিতা

    Views 18763Likes Rating 12345 টাইমসবাংলা.নেটঃ শরীর সুস্থ রাখতে মেথি চায়ের জুড়ি নেই। সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখতে মেথি চা খেতে পারেন। যারা ডায়াবেটিসে ভুগছেন ...

কৃষি ও খাদ্য

গনমাধ্যম

ঘোষনাঃ