সরকারের উচিত অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন দিয়ে জনমত যাচাই করা-শামা ওবায়েদ





প্রতিবেদক, টাইমসবাংলা.নেটঃ
বিএনপি’র সাংগঠনিক (ফরিদপুর বিভাগ) সম্পাদক শামা ওবায়েদ ইসলাম রিংকু বলেছেন, জনমত তলানীতে ঠেকে গেছে বুঝতে পেরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার জাতীয় ও সিটি নির্বাচনের মতো পৌর নির্বাচনেও জনগণের ভোটাধিকার হরণ করার পায়তারা করছে। উন্নয়নের গল্প সত্যি হলে জনগণের ভোটাধিকার হরণ হতো না। সরকারের উচিত অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন দিয়ে জনমত যাচাই করা।

ফরিদপুরের নগরকান্দা পৌরসভার সাধারণ নির্বাচন উপলক্ষে আজ বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারী) সকালে নগরকান্দার জুঙ্গুরদি ও সদরের বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগকালে তিনি সাংবাদিকদের একথা বলেন। তিনি এসময় সাধারণ ভোটারদের খবর নেন এবং তাদেরকে ধানের শীষে ভোট দেয়ার উদাত্ত আহ্বান জানান।

ধানের শীষের প্রার্থী আলিমুজ্জামান সেলু সহ এসময় যুবদলের ঢাকা মহানগর (উত্তরের) সাবেক যুগ্ন সম্পাদক হাফিজ শরীফ, নগরকান্দা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান মুকুল, সহ-সভাপতি মো. আলমগীর হোসেন বকুল, পৌর যুবদলের আহ্বায়ক হেলালউদ্দিন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা মাহমুদুল হাসান মিরানসহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা তার সাথে উপস্থিত ছিলেন।

শামা ওবায়েদ এসময় বলেন, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে রাজপথে থাকার কারণে সারাদেশে বিএনপির নেতাকর্মীরা আজ নির্যাতন নিষ্পেষণের শিকার। যতোদিন পর্যন্ত না এই ফ্যাসিস্ট সরকারকে হটিয়ে জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা হবে ততোদিন আমাদের আন্দোলন চলবে। আমরা পিছুপা হবোনা, কারণ জনগণ আমাদের সাথে আছে। নির্বাচনে কোনপ্রকার অসাধু উপায় অবলম্বন করতে না পারে সেজন্য ভোটারদের সময়মতো ভোটকেন্দ্রে উপস্থিত হওয়ারও অনুরোধ জানান।

আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নগরকান্দা পৌরসভার এই সাধারণ নির্বাচন। এতে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতিকে নিমাই সরকার, বিএনপির ধানের শীষে আলিমুজ্জামান সেলু ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুদুর রহমান মাসুদ ছাড়াও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন কামরুজ্জামান মিঠু, দেলোয়ার হোসেন দুলু, আরিফ আহমেদ বিপ্লব ও মনিরুজ্জামান তুহিন। এছাড়া ৯টি ওয়ার্ডে ৩৮ জন কাউন্সিলর ও ১৩ জন সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থী রয়েছেন।

নগরকান্দার সাধারণ নাগরিকদের কথা বলে জানা গেছে, তারা একটি নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ হোক এটিই চাচ্ছেন। তবে অবাধ নির্বাচন হবে কিনা এনিয়ে শঙ্কাও রয়েছে তাদের মনে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার মো. হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন, শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে তারা সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করছেন। #







মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

গনমাধ্যম

স্বাস্থ্য

বিশেষ সংবাদ

কৃষি ও খাদ্য

আইন ও অপরাধ

ঘোষনাঃ