ফরিদপুরে আ’লীগ সভাপতির বাড়িতে হামলা, রুবেল-বরকতের আরেক সহযোগী সাগর গ্রেফতার





প্রতিবেদক, টাইমসবাংলা.নেটঃ
ফরিদপুরে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে হামলার মামলায় আরও একজন গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের মোল্লাবাড়ি সড়ক এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার হওয়া ওই ব্যাক্তির নাম আরিফুর রহমান ওরফে সাগর (৫৪)। তিনি ফরিদপুর শহরের মোল্লাবাড়ি সড়ক এলাকার বাসিন্দা।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রাশেদুল ইসলাম জানান, গ্রেপ্তার হওয়া আরিফুর রহমান ফরিদপুরের বহুল আলোচিত দুই ভাই সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের ঘনিষ্টজন। তিনি (আরিফুর রহমান) সুবল সাহার বাড়িতে হামলার মামলার আসামি ছাড়াও বিআরটিসি কাউন্টারের ম্যানজোর লস্কর চৌধুরীর দায়ের করা চাঁদাবাজীর মামলারও আসামি। তিনি বলেন, লস্কর চৌধুরীর দায়ের করা ওই মামলায় বরকত-রুবেলও আসামি।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগ নেতার বাড়িতে হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া আরিফুর রহমানের সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আজ শুক্রবার জেলার মূখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতে সোপর্দ করা হবে।

প্রসঙ্গত গত ১৬ জুন রাতে শহরের মোল্লাবাড়ি সড়কে অবস্থিত জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল সাহার বাড়িতে দুই দফা হামলার ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে সুবল চন্দ্র সাহা গত ১৮ জুন ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় অজ্ঞাতনামা ব্যাক্তিদের আসামি করে একটি মামলাদায়ের করেন।

গত ৭ জুলাই পুলিশের বিশেষ অভিযানে সুবল সাহার বাড়িতে হামলার মামলায় গ্রেপ্তার হন ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত তার ভাই ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেলসহ আরও সাতজনকে।

এ ঘটনার পর বরকতকে শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং রুবেলকে ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

আওয়ামী লীগ নেতা সুবল সাহার বাড়িতে হামলার ঘটনার পর ফরিদপুরে পুলিশের বিশেষ অভিযানে গতকাল পর্যন্ত ১৭জনকে গ্রেপ্তার করা হলো। উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে রয়েছে শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম খন্দকার, জেলা শ্রমিক লীগের কোষাধ্যক্ষ বিল্লাল হোসেন, শহর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসিবুর রহমান ফারহান প্রমুখ।#







মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

গনমাধ্যম

স্বাস্থ্য

বিশেষ সংবাদ

কৃষি ও খাদ্য

আইন ও অপরাধ

ঘোষনাঃ